৩৬ বছরে একদিনও ছুটি না কাটিয়ে শিক্ষকতা জীবন শেষ করলেন স্বপন চক্রবর্তী

0
1518

দৈনিক শিক্ষাবার্তাঃ বাবার মৃত্যু, স্ত্রীর অসুস্থতা বা কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ কোন কিছুই তাকে আটকাতে পারে নি। ৩৬ বছরের শিক্ষকতা জীবনে একদিনও ছুটি কাটান নি তিনি। ডাক্তারি পড়ার সুযোগ হয়েছিলো কিন্তু মন বসেনি সেখানে চলে এসে যোগ দিলেন শিক্ষককতায়। তিনি মাগুরা জেলার সদর উপজেলার এসকেএইচ ইন্সটিটিউটের গনিত ও সাধারন বিজ্ঞানের শিক্ষক স্বপন চক্রবর্তী।

১৯৭৯ সালের ১৫ অক্টোবর উক্ত স্কুলের সহকারী শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন তিনি। ২০১০ সালে সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ পান। চলতি বছরের ফ্রেব্রুয়ারিতে অবসরে যান তিনি। দীর্ঘ এই কর্মজীবনে প্রাপ্য নৈমিত্তিক ছুটি কাটান নি। এরই মধ্যে বাবার মৃত্য, স্ত্রীর অসুস্থ্য সহ নানা সমস্যা ছিলো।কিছুই তাকে স্কুলে আসার ক্ষেত্রে দমাতে পারে নি।স্কুলের হাজিরা বই ও অন্যান্য কাগজ পত্র ঘেটে এসব তথ্যের সত্যতা পাওয়া গেছে।

তার বাবা শিবনাথ চক্রবর্তী মারা যান ১৯৯৬ সালের ২১ জুন রাতে। দিনটি ছিলো শুক্রবার বাবার শেষকৃত্য করে ঠিকই পরদিন শনিবারে স্কুলে হাজির হন তিনি।

পুরনো স্মৃতি উল্লেখ করে বলেন, প্রথম সন্তান জন্মের খবর শুনে খুসিতে মন ভরে গেছিলো। ভাবলা গিয়ে দেখে আসি। পরে ভাবলাম স্কুলতো খোলা। স্কুল ছুটি পরে সন্তানকে দেখতে গেছিলাম।

তার বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সদস্য জিয়াউল হক বাচ্চু বলেন, স্বপন কুমার চক্রবর্তী এ জনপদের আলোর দিশারী। দ্বায়িত্ব পালনের মধ্যদিয়ে তিনি সবার হৃদয়ে জায়গা করে নিছেন। তার এই ত্যাগ অনুসরনযোগ্য।

ব্যাক্তিগত জীবনে তিনি ৩ সন্তানের জনক। তার তিন ছেলেই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। তারছাত্ররা সবসময় তাকে নিয়ে গর্ব করে।