সুখবর পেলেন প্রাথমিকের ২৫০০ শিক্ষক

দৈনিক শিক্ষাবার্তাঃ সারাদেশের ২৬ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় দেড় লাখ শিক্ষককে জাতীয়করন করেছে সরকার। এসব শিক্ষকদের মধ্যে আড়াই হাজার শিক্ষক চাকরির বিধিমালা অনুযায়ী প্রাতিষ্ঠানিক ও একাডেমিক কাম্য যোগ্যতা অর্জন করতে পারেন নি।

জাতীয়করনের পর তিন বছর সময় দেওয়া হলেও এসব শিক্ষকরা যোগ্যতা অর্জনে ব্যার্থ হয়েছেন। এসব অযোগ্য শিক্ষকদের তালিকা তৈরী করেছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। এতালিকা প্রাথমিক ও গনশিক্ষা মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হবে বলে জানা গিয়েছে।

নতুন করে জাতীয়করন হওয়া স্কুল গুলো রেজিস্টার্ড, নন রেজিস্টার্ড কমিউনিটি স্কুল, এনজিও ব্যাক্তি মালিকানায় পরিচালিত হয়ে আসছিলো। নামমাত্র বেতনে এসব স্কুল গুলো পরিচালিত হয়ে আসছিলো। জাতীয়করনের ফলে স্কুল গুলো সরকারের অধীনে চলে আসে।

প্রাথমিক ও গনশিক্ষা মন্ত্রনালয়ের সুত্রমতে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক হওয়ার যোগ্যতা নারীদের ক্ষেত্রে এইচএসসি পাশ ও সিইনএড ও পুরুষদের ক্ষেত্রে স্নাতক সমমান ও সিইনএড করা। যোগ্যতা অর্জনে জাতীয়করনের পর তিন বছর সময় বেধে দেওয়া হয়। কিন্তু ২৪৯৬ জন শিক্ষক তিন বছর পেরিয়ে গেলেও যোগ্যতা অর্জন করতে পারেন নি।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর সুত্র জানা যায়, যারা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেও যোগ্যতা অর্জন করতে পারেন নি তাদের মধ্যে যাদের বয়স শেষের দিকে তাদের অবসরে পাঠানো হতে পারে। আর যাদের বয়স আছে সময় বাড়িয়ে দেওয়া হতে পারে তবে সে সময়ের মধ্যেও যারা যোগ্যতা অর্জন করতে পারবে না তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

জাগো নিউজ ও সাম্প্রতিক দেশকাল